ঢাকা, সোমবার, ৮ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৩ জুলাই ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

হেমিংওয়ের ছোটগল্প: এক পাঠকের লেখক

সে তার শোবার ঘরের টেবিলে বসেছিলো, ভাঁজ করা খবরের কাগজটা তার সামনে খুলে রেখেছে যেন জানালার বাইরের তুষারপাত আর ছাদের ওপর তার গলে যাওয়া দেখতে না হয়।

অনন্তের মুখোমুখি শূন্যতায় হেমিংওয়ে

মানুষকে ধ্বংস করা যেতে পারে, পরাজিত নয়- আর্নেস্ট হেমিংওয়ে

হুমায়ূন-এর প্রথম প্রহর

সময়টা সঠিক মনে নেই। ১৯৮৩ সালের গোড়ার দিকের কথা। অধ্যক্ষ ইবরাহীম খাঁর ‘পাখির বিদায়’ গল্পের নাট্যরূপ দিয়েছিলেন ড. আলাউদ্দিন আল আজাদ।

নিমধ্যমা

হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে কিছু লিখতে গিয়ে দেখলাম কিছু চরিত্র, কিছু ঘটনা, উদ্ভট কিছু চিত্রকল্প মাথার ভেতর জট পাকিয়ে বসে আছে।

ভাষা, গল্প ও হুমায়ূন আহমেদ

হুমায়ূন আহমেদের গল্পে কোনো ভান নেই। আখ্যানের কেন্দ্রে ও বাইরে ভাষার অলৌকিক পিরামিড নেই। গল্পে লিখনশৈলী নিয়ে আলাদা করে প্যাঁচ-পাঁয়তারাও নয়।

স্বপনবুড়ো, আমায় ক্ষমা কোরো


বেশ দিন কাটছিল আমার। সকালে ঘুম থেকে উঠে নাশতা করে কাপড় বদলে চায়ের কাপ হাতে লেখার টেবিলে বসে যাই।

অনুবাদ তর্ক ও অনুবাদককে স্মরণ করা না-করা

|| অলাত এহ্‌সান ||
পাঠের প্রথম বেলায় ‘রিপভ্যান উইংকল’ নামক একটি অনুবাদ গ্রন্থ আমিও পড়েছিলাম, নীলক্ষেতের পুরনো বইয়ের মার্কেটের ফুটপাত থেকে সংগ্রহ করে।

ছোটগল্প || এক কাপ কফি ও একটি সিনেমা

|| আঁখি সিদ্দিকা ||
রুপন্তি বাড়ি ফেরার পথে রোজ চন্দ্রমল্লিকা কেনে, আজ কোথাও কেন যে পাচ্ছে না! সেই ধানমন্ডি থেকে শাহাবাগ, কাঁটাবন কোথাও নেই। অদ্ভুত!

দক্ষিণ এশীয় ডায়াসপোরা সাহিত্য, ভারত-পর্ব

|| মোজাফ্‌ফর হোসেন ||

চীনের পর দ্বিতীয় বৃহত্তর ডায়াসপোরা সাহিত্যের দেশ ভারত। ভারতীয় কয়েক প্রজন্মের নারী-পুরুষ এখন সংকর (হাইব্রিড) ও অন্বয় সাধিত (হাইফেনেটেড) পরিচয় নিয়ে বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে।

মৃত কপোতাক্ষ ও মাইকেলের অমৃত ভাস্কর্যের পাশে

পলিয়ার ওয়াহিদ: দিনটা ছিল আগুনের মতো ধারালো। গাছের পাতায় ছিল না কোনো দোলা। একটুও ছায়া ছিল না দিনের শরীরে আঁকা।

ইংরেজি ভাষায় বাংলাদেশি ডায়াসপোরা সাহিত্য

|| মোজাফ্‌ফর হোসেন ||

(দক্ষিণ এশীয় ডায়াসপোরা সাহিত্য: বাংলাদেশ পর্বের শেষ অংশ)
ইংরেজি ভাষায় বাংলাদেশি ডায়াসপোরা সাহিত্য ততটা শক্ত অবস্থানে পৌঁছাতে পারেনি।

কাফকা আমাদের কেন দরকার?

|| মুম রহমান ||

A book should serve as the ax for the froyen sea within us- Franz Kafka

প্রশান্তচন্দ্র মহলানবিশ : পরিসংখ্যানতত্ত্বের স্বর্ণযুগের স্রষ্টা

|| তপন চক্রবর্তী ||

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্নেহধন্য, কবির এক সময়ের আপ্ত সহকারী, বৈজ্ঞানিক জগদীশচন্দ্র বসু, আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়ের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মেধাবী ছাত্র প্রশান্তচন্দ্র মহলানবিশের জন্মের একশ পঁচিশতম বছরে তাঁর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

নির্মাতার মানবিক চরিত্রই ভালো চলচ্চিত্রের মেরুদণ্ড: কুরোসাওয়া

খুন-সহিংসতা দূরে রেখে চলচ্চিত্রে চুপিচুপি মানুষের গল্প বলে গেছেন তিনি। সেলুলয়েডে সুন্দরকে ধরে দেখিয়েছেন সুনিপুণভাবে।

এ. ই. হাউসম্যান ও ফুটবল নিয়ে দুটি কবিতা

ভাষান্তর: মুম রহমান

ফুটবল নিয়ে কবিতা লেখার কথা বড় কোন কবিই হয়তো ভাবেননি। অনেক খুঁজেও তেমন কবিতা চোখে পড়ে না।