ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ কার্তিক ১৪২৬, ২৪ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

পাবে সামান্যে কি তার দেখা

কয়েক বছর আগে একবার লালন সাঁইজির তিরোধান দিবসে কুষ্টিয়া যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলাম, কিন্তু যাওয়া হয়নি অসুস্থতার কারণে।

বৃহৎ জলাশয়ে বৈচিত্রের সন্ধানে

লেক বা হ্রদ হলো চারপাশে ভূমি দ্বারা আবদ্ধ বড় জলাশয়। পৃথিবীতে অগণিত হ্রদ আছে, তবে এগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি হ্রদ আয়তন এবং পর্যটনের জন্য প্রসিদ্ধ।

মেঘ ছুঁতে কেওক্রাডং

দুর্গম পথে ঘাম ঝরানো ট্যুর হিসেবে বান্দরবানের কেওক্রাডং জনপ্রিয় গন্তব্য। দেশের তৃতীয়তম উচুঁ পাহাড় এটি।

রবীন্দ্র স্মৃতিবিজড়িত কুঠিবাড়ি

কুষ্টিয়া শহর থেকে ১৫ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে কুমারখালি উপজেলার অন্তর্গত গ্রাম শিলাইদহ। এই গ্রামেই অবস্থিত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত কুঠিবাড়ি।

যে নাগরদোলা কখনও থামে না

আমরা মেলায় নাগরদোলা দেখেছি। অনেকে উঠেছি। আনন্দ করেছি। কিন্তু সেগুলোর উচ্চতা কত? পনেরো ফুট, বিশ ফুট।

ইস্তাম্বুল: নীল জলে পা ডুবিয়ে যে নগর থাকে অপেক্ষায়

তোপকাপি প্যালেসের হাম্মাম এতটা মনোরম নয়, যতটা ডলমাবাহচে প্যালেসের। এমন নয় যে, এ প্রাসাদের কোথাও ছবি তোলা নিষেধ। হাম্মাম আর কিছু প্যাসেজে ছবি তোলার অনুমতি আছে দেখলাম। সেখানে দর্শনার্থীদের ছবি তোলার ভিড়ও বেশ।

বাঞ্জি জাম্প: ভীতিকর অনন্য অভিজ্ঞতা

আপনার যদি উচ্চতা-ভীতি থাকে তাহলে প্রথমেই ভ্রমণ পরিকল্পনা থেকে বাঞ্জি জাম্প বাদ দিতে হবে।

জীবন হাতে জিপলাইনিং

জিপলাইন কী অনেকেই হয়তো আমরা জানি না। দুই পাহাড় বা উঁচু জায়গার মধ্যে ঝুলন্ত দড়ির মাধ্যমে একপাশ থেকে অন্যপাশে যাওয়াকেই জিপলাইন বলা হয়। স্নায়ু শক্ত না হলে এই চেষ্টা না করাই ভালো।

ভ্রমণে যদি অ্যাডভেঞ্চার এবং রেকর্ড একসঙ্গে চান

ঘুরে বেড়াতে কে না ভালোবাসে? তখন যদি এমন কোথাও যাওয়া যায় যে স্থানগুলোর সঙ্গে বিশ্ব রেকর্ড জড়িত, তাহলে ভ্রমণের আনন্দ বহুগুণ বেড়ে যায়।

শত বছরের পুরনো দুর্গাবাড়ি

বাঙালি হিন্দু সমাজের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব। এ সময় দুর্গাপূজাকে ‘অকালবোধন’ বলা হয়। কালিকা পুরাণ ও বৃহদ্ধর্ম পুরাণ অনুসারে, রাম ও রাবণের যুদ্ধের সময় শরৎকালে দেবী দুর্গার পূজা করা হয়েছিল।

উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ দুর্গাপূজা

বছরের সেই সময় উপস্থিত। ভোর পাঁচটায় উঠে ঘুমকাতুরে চোখে রেডিও খুলে ‘আশ্বিনের শারদ প্রাতে…’ শুনে দিন শুরু করেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা।

ইস্তাম্বুল: নীল জলে পা ডুবিয়ে যে নগর থাকে অপেক্ষায় || ষষ্ঠ পর্ব

গালাটা টাওয়ার থেকে বের হলে ভুলভুলাইয়ার মতো টাওয়ার ঘিরে চারপাশে অজস্র গলি চলে গিয়েছে।

বোস কেবিনের কাটলেট

ভোর পাঁচটা। ঘুমিয়ে ছিলাম। ঈশাণ কোণ থেকে পবিত্র ফজর-এর আযানের ধ্বনি ভেসে এলো।

ঈগলের দ্বীপ লাংকাউই

মালয়েশিয়ায় দর্শনীয় স্থানের মধ্যে অন্যতম ঈগলের দ্বীপখ্যাত ‘লাংকাউই’।

ইস্তাম্বুল: নীল জলে পা ডুবিয়ে যে নগর থাকে অপেক্ষায় || ৫ম পর্ব

ভোজন কার্য সম্পাদন করার পর ফিরে গেলাম আমার হোটেলে। পুরনো আমলের বাড়িঘর পার হয়ে, ফুল বাগান আর বাজার পার হওয়া যেন কোনো কল্পনায় ডানা মেলা।